21 October, 2019
এডোবির ৫টি অন্যতম সফটওয়্যার 1

এডোবির ৫টি অন্যতম সফটওয়্যার

গ্রাফিক ডিজাইনারদের জন্য ঘরে বসে আয় করার অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে। শুধু এ সব ওয়েবসাইটই নয়, যে কোন আউটসোর্সিং ওয়েবসাইট থেকে আয় করার জন্য প্রয়োজন ডিজাইনে দক্ষতা। আর সাথে দরকার ডিজাইনে দক্ষতা অর্জনের জন্য প্রয়োজন সব ধরণের ডিজাইনিং সফটওয়্যার সম্পর্কে ধারণা।

আমি প্রথমেই যেটা বলবো, ডিজাইনিং সফটওয়্যারের জগতে সেরা স্থানটি দখল করে আছে এডোবি। গ্রাফিক ডিজাইনারদের জন্য সেরা ৫টি এডোবি ডিজাইন সফটওয়্যার সম্পর্কে আমার এই আর্টিকেলটি। আর্টিকেলটি শুরু করার আগে চলুন এডোবি সম্পর্কে আমরা কিছু ধারণা নিয়ে নেই।

এডোবি কি?

এডোবি মূলত একটি মাল্টিন্যাশনাল কম্পিউটার সফটওয়্যার কোম্পানী যা আমেরিকার ক্যালিফোর্নিয়াতে অবস্থিত। ১৯৮২ সালের ডিসেম্বর মাসে  John Warnock ও Charles Geschke এই কোম্পানী প্রতিষ্ঠা করেন। ২০১৫ সালের হিসাব অনুযায়ী বিশ্বজুড়ে এডোবির ১৫ হাজারেরও বেশি কর্মচারী ছিল যা বর্তমানে আরো অনেক বেশি হয়েছে।

এডোবি কোম্পানীটি আমাদের দেশের মানুষদের কাছে সাধারণত গ্রাফিক সফটওয়্যার নির্মাতা কোম্পানী হিসাবেই পরিচিত হয়ে আসছে। কিন্তু এটা আমাদের অনেকেরই ধারনার বাইরে যে এডোবির কার্যক্রম শুধু গ্রাফিক সফটওয়্যার নির্মাণের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়। গ্রাফিকের সাথে এডোবি ওয়েব ডিজাইন প্রোগ্রাম, ভিডিও এডিটিং ও ভিজুয়াল ইফেক্ট, অডিও এডিটিং সফটওয়্যার, ই-লার্নিং সফটওয়্যার, ডিজিটাল মার্কেটিং ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার, সার্ভার সফটওয়্যার, বিভিন্ন ধরনের ফরম্যাট ও ওয়েব হোস্টেড ইত্যাদি সফটওয়্যারও তৈরী করে থাকে।

বিশ্ববিখ্যাত এডোবি কোম্পানীর তৈরি করা অসংখ্য সফটওয়্যারের মধ্যে থেকে অত্যাধিক প্রয়োজনীয় ৫টি সফটওয়্যার সম্পর্কে জেনে নিইঃ

১.এডোবি ফটোশপঃ

এডোবির ৫টি অন্যতম সফটওয়্যার 2

এডোবি ফটোশপ মূলত একটি ফটো এডিটিং টুল ও গ্রাফিক ডিজাইন সফটওয়্যার যা এডোবি উন্ডোজ ও ম্যাক কম্পিউটারের জন্য রিলিজ করে। ১৯৮৮ সালে  Thomas ও John Knoll এটি তৈরী করেন। তৈরীর পর থেকেই সফটওয়্যারটি গ্রাফিক ডিজাইন ও ফটো এডিটিং এর বাজারে এটি নিজের উল্লেখযোগ্য স্থান করে নিতে সক্ষম হয়।

ফটোশপের মাধ্যমেই বাংলাদেশের মানুষ প্রথম এডোবি কোম্পানীর সাথে পরিচিত হয়। শুরুতে অনেকেই মনে করতো যে, ফটোশপ দিয়ে শুধুমাত্র ছবিই সম্পাদন করা যায়। কিন্তু সময়ে সাথে সাথে এটি সবারই অবগত হয় যে ফটোশপের কার্যপরিধি শুধু ছবি সম্পাদনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ না, বরং এটি দ্বারা সুন্দর গ্রাফিক তৈরী করা সম্ভব। তাছাড়া গ্রাফিক ডিজাইনের পাশাপাশি ওয়েব ডিজাইনের ক্ষেত্রেও ফটোশপের ব্যবহার লক্ষ্য করা যায়।

প্রথম দিকে ফটোশপ ৭.০ দিয়ে যাত্রা শুরু করলেও বর্তমানের ফটোশপের CS ও CC ভার্সনগুলোও ব্যপকভাবে আমাদের দেশের গ্রাফিক ডিজাইনারদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এর ভার্সনগুলো সমানভাবে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। বিভিন্ন কাজের ক্ষেত্রে প্লাগ-ইন, ব্রাশ, এ্যাকশন কাজকে করে তোলে আরো বেশি সুন্দর ও মনোমুদ্ধকর। ফটোশপের ফাইল ফরমেটের নাম হলো PSD. যার অর্থ হলো Photoshop Document.

ফটোশপে অন্যান্য অনেক সফটওয়্যারের মতোই অ্যাড-অন ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে যাকে আমরা গ্লাগ-ইন বলে থাকি। এডোবি নিজের জন্য ক্যামেরা রো এর মত কিছু প্লাগ-ইন তৈরী করলেও আপনি জেনে অবাক হবেন যে এডোবির বেশির ভাগ প্লাগ-ইনই থার্ড পার্টি কোম্পানীগুলো তৈরী করে থাকে। প্লাগ-ইন কয়েক ধরনের হতে পারে যেমন ফিল্টার, এক্সপোর্ট, ইমপোর্ট, সিলেকশন, কালার কারেকশন এবং অটোমেশন। এদের মধ্যে বেশির ভাগ প্লাগ-ইনই ফিল্টার জাতীয় প্লাগ ইন যা 8bf প্লাগ ইন হিসেবেও পরিচিত। ফিল্টার জাতীয় প্লাগ-ইনগুলো সাধারণ ছবিকে সম্পাদন করে অথবা নতুন কন্টেন্ট তৈরী করার কাজ করে থাকে।

এবার আসা যাক ফটোশপের টুলস এর কথায়। ছবি সম্পাদনের জন্য এডোবির রয়েছে বেশ কিছু বিল্ট-ইন টুলস। যখন ইউজার ফটোশপ ওপেন করেন, তখন ফটোশপ স্ক্রিনের বাম পাশে মাল্টিল্যাংগুয়াল টুলবার এসে উপস্থিত হয়। কাজের ধরন অনুযায়ী ফটোশপের টুলসগুলোকে ড্রইং, পেইন্টিং, মেজারিং ও নেভিগেশন, সিলেকশন, টাইপিং ও রিটাচিং ক্যাটাগরিতে ভাগ করা যায়। ফটোশপের সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত টুলগুলোর মধ্যে পেন টুলস, কোন ষ্টাম্প টুলস, শেপ টুলস মেজারিং এন্ড নেভিগেশন টুলস, সিলেকশন টুলস এর মধ্যে ক্রপিং টুলস, স্লিকিং টুলস, মুভিং টুলস, মার্ক টুলস, ল্যাসো টুলস, ম্যাজিক ওয়ান্ড টুলস, ইরেজার টুলস উল্লেখযোগ্য।

এডোবি ইলাস্ট্রেটরঃ

এডোবির ৫টি অন্যতম সফটওয়্যার 3

এডোবি ইলাস্ট্রেটর এডোবি কোম্পানীর তৈরী সবচেয়ে ভালো ভেক্টর ডিজাইনিং সফটওয়্যার হিসেবে পরিচিত। সফটওয়্যারটির সর্বশেষ ভার্সনের নাম হলো এডোবি ইলাস্ট্রেটর CC ২০১৮ যা এই সফটওয়্যার লাইনের ২২তম প্রজন্মও বটে। এটি এডোবি সিস্টেমের অন্যতম সেরা একটি এডোবি ডিজাইনিং সফটওয়্যার।

ভেক্টর ডিজাইনিং সফটওয়্যার হওয়ার কারণে এডোবি ইলাস্ট্রেটর দ্বারা ইলাস্ট্রেশন অংকন, কার্টুন, ডায়াগ্রাম, চার্ট, লোগো ইত্যাদি খুব সহজেই তৈরী করা যায়। ভেক্টর হওয়ার কারণে ইলাস্ট্রেটর ডিজাইন রেজুলেশন ও গুনগত মানের কোনরুপ পরিবর্তন ছাড়াই ভেক্টরকে যে কোন সাইজে পরিবর্তন করতে পারে যা এডোবির অন্য কোন সফটওয়্যার দ্বারা করা খুবই কষ্টসাধ্য ব্যাপার। ভেক্টর ডিজাইনের ক্ষেত্রে রেজুলেশনের কোনরুপ পরিবর্তন ছাড়াই ডিজাইনের সাইজ পরিবর্তন, লাইনগুলির ইচ্ছা অনুযায়ী দৈর্ঘ্য ও প্রস্থ্য নির্ধারণ, ফাইলের সাইজ অনেক কম ও ইলাস্ট্রেশনের জন্য সবচেয়ে ভালো হওয়ায় ভেক্টর ডিজাইনের কথা উঠলেই এডোবি ইলাস্ট্রেটর ডিজাইনারদের প্রথম পছন্দ হিসেবে পরিগণিত হয়।

তবে সুবিধার পাশাপাশি অসুবিধাও থাকা একটি সাধারণ ব্যাপার। এডোবি ইলাস্ট্রেটর এর অসুবিধাগুলি হলো এর দ্বারা তৈরীকৃত ড্রইংগুলি ফ্লাট এবং কার্টুন মনে হয় তাছাড়া বাস্তবতার সাথে মিলে যায় এমন ড্রইং করা খুবই কষ্টের।

এডোবি ইলাস্ট্রেটর এর যেসব ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয় তার মধ্যে লোগো ডিজাইন, ম্যাপ ড্রইং, ইলাস্ট্রেশন ড্রইং, ইনফোগ্রাফিক, ফটোরিয়ালিস্টিক ড্রইং, প্যাকিং ডিজাইন গুরুত্বপূর্ণ। এটি ছিল এডোবি ইলাস্ট্রেটর এর পরিচিতি মাত্র। আপনি যদি এডোবি ইলাস্ট্রেটর এর সাথে এডোবি ফটোশপের কাজও পেরে থাকেন তবে আপনি এ দুটি সফটওয়্যারের সমন্বয়ে অসাধারণ গ্রাফিক তৈরী করতে পারবেন এবং বিশ্বাস করুন পৃথিবীর সর্বসেরা ডিজাইনাররা তাই করে থাকেন।

এডোবি ড্রিমওয়েভারঃ

এডোবির ৫টি অন্যতম সফটওয়্যার 4

এডোবি ড্রিমওয়েভার এডোবির একটি প্রোপাইটরী ওয়েব ডেভেলপমেন্ট টুল। শুনতে অবাক লাগলেও এটি সত্য যে এডোবি ড্রিমওয়েভার এডোবি নয় বরং অন্য একটি কোম্পানী ম্যাক্রোমিডিয়া ১৯৯৭ সালে তৈরী করেছিল এবং ২০০৫ পর্যন্ত, যত দিন না ম্যাক্রোমিডিয়া এডোবির আওতায় আসে ততদিন পর্যন্ত এটি শুধুই ড্রিমওয়েভার হিসেবেই পরিচিত ছিল। এখন, এটি এডোবি ডিজাইন সফটওয়্যার হিসেবে দারুণ জনপ্রিয়।

আমারা সবাই জানি ওয়েব ডেভেলপমেন্ট করার জন্য এইচটিএমএল, CSএস, জাভাস্ক্রিপ্ট, পিএইচপি এর মত ল্যাংগুয়েজ জানা প্রয়োজন। বতর্মান সময়ে মার্কেটপ্লেসগুলোতেও ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এর উপরে প্রচুর কাজ থাকে। অনেকেই আবার এটিকে মূল পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন। কিন্তু প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ এর ভীতির কারণে অনেকেই এ পেশায় আসতে ভয় পান। আর তাদের জন্যই আদর্শ হলো এডোবি ড্রিমওয়েভার।

এডোবি ড্রিমওয়েভারের সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো এটি প্রোগ্রামিং জ্ঞান ছাড়াই একজন ডিজাইনারের ভিজুয়াল কর্মকে কোডিং এর রুপান্তরিত করে ওয়েবসাইট তৈরীতে সক্ষম। আর বিশ্বজুড়ে ডিজাইনারদের কাজ করার সুবিধার্থে এটিতে রয়েছে মাল্টিল্যাংগুয়াল ফাংশন যার মাধ্যমে সহজেই নিজ মাতৃভাষায় এটিকে ইনস্টল ও কাজ করতে পারেন। এডোবি ইলাস্ট্রেটর এর মত এডোবি ড্রিমওয়েভারেরও সর্বশেষ ভার্সনের নাম এডোবি ড্রিমওয়েভার CC ২০১৮।

এডোবি ইনডিজাইনঃ

এডোবির ৫টি অন্যতম সফটওয়্যার 5

এডোবি ইনডিজাইন একটি ডেক্সটপ পাবলিশিং সফটওয়্যার। পোষ্টার, ফাইয়ার, ব্রুশিয়ার, ম্যাগাজিন, নিউজ পেপার, প্রেজেন্টেশন, বই, ই-বুক ইত্যাদি তৈরী এডোবি ইনডিজাইন অতুলনীয়। ইনডিজাইন মূলত এডোবি পেমেকারের উত্তরসূরী যা এডোবি ১৯৯৪ সালে এলডাস কোম্পানী কিনে নেওয়ার পর পায়।

দুঃখের বিষয় এই যে ১৯৯২ সালে কোয়ার্ক এক্সপ্রেস ৩.৩ এবং ১৯৯৬ সালে কোয়ার্ক এক্সপ্রেস ৪.০ এর সাথে প্রতিযোগীতার বাজারে এটি পিছিয়ে পড়ে। কোয়ার্ক চেয়েছিল এডোবিকে কিনে নিয়ে পেজমেকারের সমস্বয়ে বাজার ধরে নিতে কিন্তু এডোবি এতে অস্বীকৃতি জানায়।

এডোবি চেয়েছিল একটি নতুন পেজ লে-আউট এপ্লিকেশন্ প্রোজেক্টটি সর্বপ্রথম এলডাস শুরু করে যার কোড নেম ছিল শুকসান, পরবর্তীতে এটির কোড নেম এ পরিবর্তন করে রাখা হয় কে-২ এবং ২০০০ সালে রিলিজ করা হয় ইনডিজাইন ১.০ নামকরণ করে। বর্তমানে ডিজিটাল মার্কেটিং আমাদের দৈনন্দিন জীবনেরই একটি অংশ হয়ে উঠেছে। যে কোন কোম্পানি মার্কেটিং ও পাবলিশিংকে অনেক বেশি গুরুত্ব দিয়ে থাকে। তাই এটি গ্রাফিক ডিজাইনার ও পাবলিশারদের কাছে অন্যতম সেরা এডোবি ডিজাইন সফটওয়্যার হিসেবে খুবই জনপ্রিয়।

এডোবি আফটার ইফেক্টঃ

এডোবির ৫টি অন্যতম সফটওয়্যার 6

এডোবি আফটার ইফেক্ট এডোবির তৈরী ভিজুয়াল ইফেক্ট, মোশন গ্রাফিক এবং কম্পোষ্টিং এপ্লিকেশন যা চলচিত্রের পোষ্ট প্রোডাকশন এবং টেলিভিশন প্রোডাকশন এ ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। তাছাড়া নন-লাইনার এডিটর, অডিও এডিটর ও মিডিয়া ট্রান্সকোডার হিসেবেও এডোবি আফটার ইফেক্টের খ্যাতি কম নয়।

এডোবির বেশ কিছু সফটওয়্যারের মত এডোবি আফটার ইফেক্টও এডোবির নিজের তৈরী করা নয়। এটিকে মূলত কোম্পানী অফ সাইন্স এন্ড আর্টস নামের একটি কোম্পানী তৈরী করে এবং সফটওয়্যারটির প্রথম দুটি ভার্সন ১.০ ও ১.১ ও রিলিজ করে।

এডোবি আফটার ইফেক্টের প্লাগ-ইন এর হিসাব করতে গেলে এটিকে এডোবি ফটোশপের সাথে তুলনা করলে ভুল হবে না। ফটোশপের মতো এডোবি আফটার ইফেক্টেরও রয়েছে অনেক বিস্তৃত প্লাগ-ইন সাপোর্ট। তাছাড়া থার্ড পার্টি প্লাগ-ইন তো আছেই। যার মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য হলো 3D ইফেক্ট। এডোবির আফটার ইফেক্ট 3D ইফেক্ট রেন্ডার করতে সক্ষম তাছাড়া এটি বেসিক 2D লেয়ার থেকেও 3D লেয়ার কনভার্সনের ক্ষেত্রে অসাধারণ।

3D ইফেক্ট ছাড়াও এডোবির আফটার ইফেক্টের রয়েছে বেশ কিছু প্লাগ-ইন যা থেকে ভিডিওকে চলচিত্র বা কার্টুনের মত করে তৈরী করা। আগুন, ধোয়া অথবা পানির মত ইফেক্ট তৈরী করার মত কাজ এক নিমেষেই করা সম্ভব। আমাদের দেশে প্রাথমিক পর্যায় থেকে এডভান্সড ভিডিও এডিটিং এর জন্য এডোবির আফটার ইফেক্টের ব্যবহার জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

উপরের কথাগুলো শুনে যদি মনে হয় যে এডোবি আফটার ইফেক্ট আপনার জন্য না তাহলে আপনি ভুল করবেন। ইউটিউব সহ ইন্টারনেটে এডোবি আফটার ইফেক্টের হাজার হাজার টিউটোরিয়াল রয়েছে যা থেকে আপনি খুব সহজেই এডোবি আফটার ইফেক্টের ব্যবহার রপ্ত করতে পারবেন। আর শুধুমাত্র এডোবির বিভিন্ন সফটওয়্যারের টিউটোরিয়ালের উপর গড়ে ওঠা চ্যানেলের সংখ্যাও নেহাত কম নয়।

সবশেষে বলা যায়, ডিজাইন এবং পাবলিশিং মার্কেটে ডিজাইনারদের কাছে এডোবির তার নিজ স্থান করে নিয়েছে বহু আগেই। সফটওয়্যারের নতুন নতুন ভার্সনের সাথে ব্যবহারকারী যাতে আরো সহজভাবে তার কার্য সম্পাদন করতে পারে তা নিয়ে প্রতিনিয়তই কাজ করে যাচ্ছে এডোবি।

গ্রাফিক ডিজাইনের জন্য এডোবির আরো অনেক সফটওয়্যার থাকলেও উপরের সফটওয়্যার গুলোকে এডোবির সেরা ৫ সফটওয়্যার হিসেবে আমার কাছে মনে হয়েছে। যারা গ্রাফিক ডিজাইনকে নিজেদের পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন বা যারা ঘরে বশেই শখের বসে গ্রাফিক ডিজাইন করে থাকেন এবং ফ্রিলান্সিং এ নিজের ক্যারিয়ার গড়ার কথা ভাবছেন তাদের জন্য উপরের ৫টি সফটওয়্যার এর সঠিক ব্যবহার শিখে নিজেদের ভবিষ্যৎকে সুন্দর ও উজ্জ্বল করে গড়ে তুলতে পারেন।

 

লিখেছেনঃ

মোঃ রিয়াদ আহম্মেদ

Share